RSS Feed

Disorder and People’s Struggles

Posted by স্বাভিমান


Global Turmoil
Disorder and People’s Struggles
Arup Baisya
The world economic and political order is in great turmoil. The US economic and geo-political world hegemony is based on two pillars. The dollar, for all its faults and weaknesses, is the pivot of the entire global system of currencies, stocks, bonds, derivatives and investments of all kinds. Along with it, the military might for strategic geo-political control is another pillar.
The third currency war which has been started from 2010 post-subprime crisis is taking new dimensions. In 1997 the US trade deficit with China was less than $50 billion. Then the deficit grew steadily, and in the space of three years, from 2003 to 2006, it exploded from $124 billion to $234 billion. This period, beginning in 2003, marks the intensification of concern about the US-China bilateral trade relationship and the role of the dollar-yuan exchange rate in that relationship.
China's internal deflation is exported to the United States through the currency exchange rate and ends up threatening deflation in the United States. This begins with the Chinese policy decision to peg the exchange rate between the yuan and the dollar.
This meant that as the Fed printed dollars and those dollars ended up in China to purchase goods, the People's Bank of China (PBOC) had to print yuan to soak up the surplus. In effect, China had outsourced its monetary policy to the Fed, and as the Fed printed more, the PBOC also printed more in order to maintain the pegged exchange rate. The Chinese acquired massive quantities of US Treasury obligations as their trade surplus with the United States persisted and grew.
Chinese leaders have begun to make it easier to trade the yuan in foreign exchange markets. On March 23, 2015, China backed the Renminbi Trading Hub for the Americans. That makes it easier for North American companies to conduct yuan transactions in Canadian banks. China opened up similar trading hubs in Singapore and London. (Source: "Canada Aims to Boost Deals in China Currency", The Wall Street Journal, March 23, 2015.)
The process of absorbing all the surplus dollars entering the Chinese economy, especially after 2002, produced a number of unintended consequences. The first problem was that the PBOC did not just take the surplus dollars, but rather purchased them with newly printed yuan. By early 2011, Reuters estimated that total Chinese foreign reserves in all currencies were approximately $2.85 trillion, with about $950 billion of that invested in US government obligations of one kind or another. The United States and China were locked in a trillion-dollar financial embrace, essentially a monetary powder keg that could be detonated by either side if the currency wars spiralled out of control.
While the Russian ruble is in no position to replace the dollar in international reserves, it could become a regional reserve and trade currency for Russian and Central Asian gas suppliers and Eastern European gas customers, dislodging the dollar to that extent at least. Energy is a wedge used to forge a regional economic bloc with a regional reserve currency, the ruble. Russia successfully maintained its regional hegemony by establishing Gazprom's near monopoly on natural gas supplies to Europe through pipelines transiting Ukraine and Belarus. Europe and US backed company Nabucco 's attempt to circumvent these pipelines in a way that neither uses Russian natural gas nor passes through Russian territory has been foiled. Nabucco tried to source its gas initially in Azerbaijan and later Kazakhstan and Iraq and traversed to Turkey on its way to Europe. Russia also speaks openly of the dethroning of the dollar as the dominant reserve currency.
Russia released its official "National Security Strategy of the Russian Federation up to 2020," an overview of the global strategic opportunities and challenges confronting Russia. In addition to the usual analysis of weapons systems and alliances, the strategy draws the link between energy and national security and considers the global financial crisis, currency wars, supply chain disruptions and struggles for other natural resources, including water. The strategy does not rule out the use of military force to resolve any of these finance- or resource-related struggles.
For now, it is enough to say that Russia has warned the world of the coming blue fuel wars in both words and deeds.
While all currencies by definition represent some store of value, the dollar is different. It is a store of economic value in a nation whose moral values are historically exceptional and therefore a light to the world. The debasement of the dollar cannot proceed without the debasement of those values and that exceptionalism.
In global scenario, table has already turned, and US, it seems, is oblivious of its containment. US is desperately flexing its muscle and inciting war hysteria with pernicious show of its war machine, when both US job market and wages are plummeting. When Turkey strikes a missile deal with Russia, US war machines are displayed in Sweden under NATO umbrella fearing deep fissures within NATO camp. When US fails to compel North Korean rulers to kowtow, it brazenly applies sanction and shows South Korean missile. Israel, the pivot of US Arab domination, has been taken aback by the recent non-violent resistance by tens of thousands of Palestanians mobilised in response to Israeli closure of old city. The Palestenian youths forced open a gate in the Israeli separation wall. It's a sign of rejuvenation of Palestanian movement. New form of grassroots movement is emerging all over the world. And it's a sign of warning to the imperialists of all hues.
The US is threatening to cancel nuclear agreement with Iran, but other European signatories are averse to Trump's rhetoric. US failed to tame North Korea despite repeated threatening of attack on Korean nuclear installations. Through Russia's successful intervention, the US agenda to dislodge Assad regime has failed. US show of its military might could not dissuade China from its overwhelming claim on South China Sea. The strategic interest of US in East Asia and Afganistan is getting jeopardised by China's ever-increasing influence in East Asia through its One Belt One Road (OBOR) project. The diffusion of Doklam crisis is in conformity with the toning down of India's opposition to China's OBOR project.
One must comprehend where this disorder in world geo-politics will lead. In view of the world capitalist economic crisis which is showing no sign of overall revival post-subprime crisis, the imperialist conflict for strategic control will deepen. If it triggers into a full-fledged war, it will not last long with large-scale human and natural catastrophe due to the use of nuclear arsenals which many countries now posses.
So, while aligning with world-wide anti-war campaign and people's movement, progressives in India must build popular pressure for negotiation and dialogue with the neighbouring countries especially China and Pakistan to resolve all vexed issues.
Throwing a Russian resources assault, a Chinese currency assault and an Iranian military assault at United States interests in a near simultaneous affront would produce predictable effects in the hair-trigger world of capital markets. Markets would experience the financial equivalent of a stroke.
The global economy in double whammy: the capital surplus absorption problem due to scarcity of profitable destination for investment and investment problem due to scarcity of fund of highly indebted banks. Labour's earnings plummeted due to the widespread trend towards investment in asset values instead of production and manufacturing, the asset value also took a plunge. The gap between earnings and consumer spending is being tried to cover by the rise of credit card industry and increasing indebtedness.
The Japanese boom of the 1980s ended with a collapse of the stock market and plunging stock prices and is still ongoing. To boost investment, Japanese banks are maintaining near zero percent interest rates. Investment in India for bullet train etc is an opportunity for the Japanese. But this model of development will further screw the Indian people. Indian banks are reeling under crisis due to bad loans and NPA, and now expecting bailout package from Govt. with common Indian taxpayers' money.
Despite the appearance of economic dynamism in China today, sudden collapse is entirely possible and could be caused by things such as inflation, rising unemployment, ethnic tensions or a burst of housing bubble. Prolonged and widespread unemployment is potentially destabilising in China.
In the midst of deep global economic crisis, India cannot achieve export led growth as China achieved at the initial phase of neo-liberalism in the eighties. The SBI report said, "GDP growth during the second quarter of the current fiscal is expected to remain below 6 percent due to downward trend in export and muted growth in the agricultural sector. The Gross Domestic Product (GDP) growth in the first quarter had fallen to 5.7 percent". Though US imports of textile and apparels have grown 30 percent between April and July, Indian export to US remained at the same level. The slowdown in demand has only aggravated the situation. The Indian economy is facing the cliff from where its downward march would continue. As the economy contracts the news came of the massive growth in net worth of the top 100 billionaires growing by 26% and who else to top the chart but Mukesh Ambani whose net worth increased by a massive 67%. What people are witnessing is a jobless economic growth with tremendous growth of capitalists.
The author of Capital in Twenty-first Century, Thomas Picketty, and his colleague Lucas Chancel at the World Inequality Lab, Paris School of Economics, have provided the numbers as far as incomes are concerned in their working paper "Indian Income Inequality, 1922-2014". (Indian income inequality, 1922-2014 : From British Raj to Billionaire Raj? : Lucas Chancel, Thomas Piketty : July, 2017)
This report states "our results shed light on a particularly striking characteristic of Indian growth over the past three decades: the very moderate rise of the "middle class"—at least defined as individuals above median income and below the top 10% earners. Incomes of the middle 40% grew at 102% over the 1980-2014 period. Compared to industrialized countries' growth rates for this group, the figure is impressive. In the Indian context however, the middle 40% were notably below average growth (187%). Since 1980, the middle 40% group in India captured a much smaller share of total growth (25%) than its counterparts did in China or Europe (more than 40%) or even the USA (33%). This result should help us better characterize what has been termed as the rise of India's middle class".
In this mirage of growth and despair the opportunity arises from the revolutionary proletarian to give the clarion call for redistribution of wealth through nationalisation, state intervention and workers’ participation.
The uneven development is ingrained in capitalism especially at its latest stage of imperialism. But the capitalism has the dynamic capacity to annihilate the space with time. It can dismantle all geographical barriers to bring sundry nations under its overwhelming control. Geographical diversity is not anathema to capitalism, rather it is necessary for its sustainability. Barring few African countries, every part of the world has come under its fold. Capitalist relations of production are in the driving seat when all other social relations have been remoulded and co-opted under its command. When one talks about uneven development, one must keep an eye on changing geographical landscape due to capitalist restructuring and huge investment in assets. The rising Washington DC with investment in social and physical infrastructure and contrasting sorry state of affairs of once industrialised Pennsylvania with deserted factories, dilapidated roads and bridges and unemployed workers speak volumes about the capitalist restructuring. Who could have imagined that Bengalore will develop as world's IT hub and Mumbai will take its present look with high rise buildings. The investment of capital in assets is displacing the toiling masses from its habitat and workplace. Capitalist accumulation through displacement or primitive accumulation already displaced crores of people from Indian agriculture as well as from urban and semi-urban areas. The distress situation of agriculture due to lack of Government investment and the presence of blood-sucking corporates in agri-business, a huge number of migrating contractual labourers have been created. On the one end, the organised labour has been dismantled through capitalist neo-liberal restructuring and on the other hand a large vulnerable proletariat or precariat is being created. In agricultural sector, a new class of landlord capitalist and peasant capitalist have emerged, the mid-peasant is almost extinct, and the number of agricultural wage labourers has crossed the threshold to influence the change of relation of production to capitalist one. But all the agricultural classes have a score to settle with global corporate sharks that are in control of labour process, surplus accumulation and input and output side of production.
This new proletarianisation and precatrianisation has also been changing the contours of all kinds of identity movements. The support base of the dalit movements solely driven by identity rights without focusing on the working class within the identities is dwindling, when section of upper strata being co-opted in the overall corporate interest is siding with the ruling class. When there is loss of jobs of muslims and lower castes Hindus who cart cattle, labour in tanneries and make shoes, bags and belts including for big name brands such as Zara and Clarks, the Dalit middlemen who are in supply chain are with ruling class. The timings of banning and lynching in the name of cow nationalism are in sync with claim of big exporters that that they have enough leather as they source hides widely, including from abroad. However, the emergence of new Dalit movement which is highlighting the rights of Dalit workers is noticeable.
Without organising this working class, there cannot be any effective resistance movement against corporate onslaught. There are structural barriers to achieve the unity of working class. These working classes are disorganised and compartmentalised with their diverse immediate interest. But there is also a commonality in their desire of wage-hike and social security. They are also divided on caste-identity fault lines. The agenda of identity rights and opposition of caste oppression needs to be incorporated within the working-class struggle with strenuous and continuous pedagogic efforts. The socio-economic gap between the mental working class predominantly comprising of upper-castes and the manual working class is huge in Indian reality and this needs to be addressed through a simultaneous cultural movement too.

The resistance movement against land grabbing and eviction or the movement against the capitalist accumulation by displacement as David Harvey termed it is not enough to build a revolutionary struggle against corporate onslaught. If progressives fail to build a revolutionary working-class movement, the fascist forces are bound to raise their ugly face. When capitalism is in crisis and the working class is in disarray, the fascist forces are bound to rise.
Due to jobless growth and dismantling of state-guaranteed social security, the exponentially rising parliamentary curve of Bharatiya Janata Party (BJP) has been momentarily halted. In the recent by-elections and very recently held Gujarat Assembly elections, the downward trend of the curve is also visible. But there is no scope for complacency, the revolutionary popular upsurge under the leadership of working class can only defeat fascism effectively. One must bear in mind that the fascist forces backed by RSS have taken two-pronged strategy for fascist take over. One is overt fascist mass movement on the issue of Hindutwa—illegal migrants, infiltration, refugee etc and other is more insidious nature of changing the character of democratic institutions through infiltration of fascist forces. On the second front, RSS has achieved substantial success. No doubt the Supreme Court is still giving citizens some respite by pronouncing democratic judgement on Privacy issue, Rohingiya issue etc. But this will not be sustainable, if BJP once again reign in power post 2019-election.
The revolutionary forces should rise to the occasion when Indian economy is in deep crisis, to build the working class revolutionary core with a view to develop united anti-fascist struggle of all social and political anti-BJP democratic forces.
The two things that capitalism exploits are the labour and nature for profit and accumulation. The human being has been evolved from and is organically linked with nature and thus human body is the metabolic unity of labour and nature. The separation between natural, inorganic conditions of human existence and living & active humanity is a separation which is completely posited only in the relation of wage labour and capital. In the capitalist social relations of production, the metabolic rift between labour and nature occurs and capitalists control the labour process to exploit both labour and nature and thus destroy the balance of nature. The capitalist carbon economy and unbridled exploration of natural wealth has already destroyed the nature to such an extent that it is beyond the reach under the capitalist profit-motive to repair the damage and rejuvenate nature.
The genius of capitalism's Cheap Nature strategy was to represent time as linear, space as flat, and nature as external. Recognising capital accumulation as both objective process and subjective project, Marx's value thinking offers a promising way to comprehend the inner connection between accumulation, biophysical change, and modernity as a whole. So, to save earth and the humanity from ecological disaster, people must have a project to go beyond capitalism.
The global warming, holes in Ozone layer and rise in sea water level have posed disastrous consequences to the existence of human civilisation. The first world or industrial north, with about 25 percent of the world's population and owning about 86 percent of the world's industry, consumes 80 percent of world energy. The US, with around 5 percent of world population, has been estimated to consume 20 percent of the world's non-renewal energy resources. The US gobbles up a quarter of the world's energy supplies, about as much energy as used by entire third world. Under the pressure of global opinion, global leaders reached an agreement known as Kyoto Protocol to address ecological issues. But industrial north especially the US diluted the obligatory provisions of Kyoto Protocol and designed a new agreement known as Paris Agreement with voluntary provisions. Now President Trump is threatening to withdraw from Paris agreement too. The people's struggle against capitalist development and for sustainable development model needs to be launched with a view to march ahead beyond capitalism, can only save humanity from ecological disaster.
Indian people are bearing the brunt of both global ecological degradation and the capitalist development model. Many states and cities are encountering repeated floods and draught. For example, due to the release of water from the Big Dams, the large landscape of lower Assam has been inundated with three consecutive floods in this year.
There is a sustained anti-dam movement in various parts of India including Assam. But the difficulty is that the workers engaged in the construction and running of Big Dams and ancillary industries are not averse to its construction due to their immediate livelihood issue. So, it is necessary to formulate a programme on sustainable development model along with anti-dam movement.
Frontier
Vol. 50, No.27, Jan 7 - 13, 2017
http://www.frontierweekly.com/articles/vol-50/50-27/50-27-Disorder%20and%20Peoples%20Struggles.html


Citizenship Question and Assam Politics

Posted by স্বাভিমান


Citizenship Question and Assam Politics

Arup Baisya

NRC Updating  
An unprecedented exercise of identifying citizens through updating of the ‘National Register of Citizens (NRC), 1951’ for Assam has been going on over the past two years. The first list of NRC is now out in the public domain. This is done when the Supreme Court, which is monitoring the entire process, had ordered that the first draft of the NRC be published by December 31, 2017 with two crore claims whose scrutiny has been completed and after completing the scrutiny of around 38 lakhs people whose documents were suspect. But the first list contained only 1.9 crore out of total 3.29 crores. NRC authority’s silence in this regard cannot keep wild speculations at bay. Sitting on the fences, Bengali speaking people have every reason to jump the bandwagon of suspecting the bureaucratic motive. Furthermore, when upper Assam recorded about 70% inclusion and predominantly Bengali inhabited Barak Valley recorded about 30% inclusion in the first list, when there are widespread anomalies in the inclusion of members of the same family, one can perceive it as either the manifestation of negligent, chauvinist mentality of the bureaucracy or the absence of any method to their madness.
However, after initial phase of misunderstanding on the purpose of NRC updating initiated by Congress in 2013 and its discontinuation due to widespread protest movement, both religious and linguistic minorities in Assam welcomed it this time when the process restarted in 2015 by BJP government under the monitoring of Supreme Court. They welcomed it to get rid of the harassment being meted out to them in the name of Doubtful voter (D-voter) and sending them to Detention camp after the Supreme Court scrapped the IMDT Act in 2005. In its judgment, delivered on 12 August 2005, in response to a petition seeking its repeal by Sarbananda Sonowal, a former president of AASU, former member of legislative assembly and member of Parliament from the Asom Gana Parishad (AGP) and currently the chief minister of Assam, a three-judge bench declared the IMDT Act unconstitutional. IMDT was considered as safeguard by the minorities as the act affirmed the onus of proof of foreign nationality on the complainant. But the communal and chauvinist forces who have internalized the belief of the presence of huge infiltrators and refugee in Assam from their pathological hatred against the minorities were taken aback when 3.29 crore of people completed the complex and due procedure of submitting all kinds of NRC forms. The whole rotten edifice of chauvinist politics meticulously built on cock and bull story of infiltration and immigration and on whole lot of wildly guessed figures appears to come crashing down. They are now back to the drawing room and formulating new strategy of political chicanery to polarize the people. This is all the more necessary to sustain the hegemonic rule of the compradors and their bourgeois hangers-on of Assamese “Little Nationalism” when the labour movement in Assam is showing new signs of rejuvenation and revitalization.
The Genesis
The history of identification of citizens and sifting out non-citizens goes back to the Assam movement and the Assam Accord. However, it had much deep-rooted concern that had been vexing the people of Assam since the colonial times. The socio-political conditions that emerged in the colonial rule planted a latent fear in the minds of the people of Assam of being swamped by the Bengali-speaking people. As a consequence, Bengali became synonymous to foreigners. British annexed the entire territory of Assam and placed it under the Bengal Presidency. Assam was administered as part of Bengal from 1826 to1873. In 1874, Assam was made a Chief Commissioner's province and three districts of Bengal: Cachar, Sylhet and Goalpara came under the provincial administration of Assam, then in 1905 British incorporated Assam in unit called ‘East Bengal and Assam’ with Dhaka as the capital. When Bengal partition was annulled in 1912, Assam once again ruled as a separate Chief Commissioner’s province that included the predominantly Bengali district of Sylhet and Cachar. Due to the vehement opposition from the leader like Gopinath Bordoloi and the support he secured from Gandhi, Sylhet District excluding Karimganj Sub-Division was conceded to Pakistan through referendum. 
The Election Commissioner in 1979 reported the unexpected large increase in the electoral rolls. According to the 1951 census, 56.7 percent of the population was Assamese speaking, in 1961 62.4 percent, and in 1971 61 percent. The Bengalis were 16.5 percent, 18 percent, and 19.7 percent, and the Hindi-speaking population was 3.8 percent, 4.8 percent, and 5.4 percent. The census report does not reveal the linguistic identity of tea garden population separately. Between 1951 and 1961 the population of Assam increased from 8 million to 10.6 million (a 35 percent increase), but the number of Assamese speakers rose from 4.6 million to 6.7 million, a 48.5 percent increase, suggesting the magnitude of language “switching”. In the 1931 census only 1.7 million people reported Assamese as their mother tongue. Between 1961 and 1971 the proportion of Assamese declined for the first time, as the proportion of Bengali speakers increased. This shift, though small, was in a direction that aroused the anxieties of many Assamese. If a large proportion of the Muslim population (24.6 percent of the population in 1971), most of whom are of Bengali origin, declared themselves Bengali, the position of the Assamese and Bengalis could be reversed. The manipulative political stance applied by the Assamese middle class to generate fear-psychosis of losing their identity by being numerically outnumbered by the migrant Bengali speaking people assumed the form of anti-foreigner movement from 1979. The first organized opposition was in the form of twelve-hour general strike called by All Assam Students Union (AASU) on 8th June 1979. AASU demanded “detection, disenfranchisement and deportation” of the foreign nationals; those who had entered the state after 1961 should be expelled from the state and their names were to be expunged from the electoral rolls.
The Class Politics
The national political leaderships representing the big bourgeoisie also tried to co-opt the Assamese ‘little nationalism’ the term coined by the eminent Marxist scholar Amalendu Guha, by inciting ethnic sentiment. The Assam movement, according to Amalendu Guha, was a programme led by the Assamese middle class at a conjunctural crisis. According to him, hard pressed by big capital from above and the rising labour and peasant movement from below, the Assamese upper classes are terribly agitated about the economic stagnation. Incapable of competing with big capital, they aspired to monopolise the small industries, petty trade and the profession and services. This diversion of the movement from targeting the big capital by raising issue of development, devolution and democratization of power to anti-Bengali anit-foreigner’s movement gave the Assamese middle class the required space to collaborate with the national bourgeoisie. Hiren Gohain, another renowned left intellectual of Assam agreed with Guha that the main thrust and character of such movements served the interest of the Assamese small bourgeoisie and landlords, and was most likely to profit the big bourgeoisie.
The Assam movement culminated into a memorandum of settlement signed by AASU and the then Prime Minister, Rajiv Gandhi in 1985, and this accord is known as Assam Accord which stipulated the 24th March midnight, 1971 as the cutoff date for identifying citizens and demarcating illegal migrants. With an open chauvinist agenda of Assam movement to denationalise Bengali speaking people, the merciless mass killings of Nelie etc exposed the inherent communal character of the movement which made the religious minorities as the main target of physical attack. The numerically significant, but economically and socially weak religious minorities of lower Assam were always the soft target of the chauvinists since independence to coerce them to opt for Assamese as their mother tongue. Through coercion and through medium of education, majority of the religious minorities use Assamese language in public life. But despite this submission to the coercive process of Assamisation, the Assamese ‘little nationalism’ or chauvinism always treat them with suspicion and with the rise of Hindutwa forces they have once again become the prime target. The recent field study conducted by Diganta Sharma, an Assamese mainstream journalist and published it in a book form revealed the fact that similar treatment was meted out to the Namasudras, the Bengali speaking schedule caste community and they were also physically attacked, their villages torched in mass scale during the Assam movement. However, the Bengali Hindus were mainly targeted as the competitors in the space like services, contracts etc. Some commentators pointed out the land dispute as the reason for conflict in the rural areas. But in my opinion, they have overemphasized the land question because of the fact that the tribals who were instigated to attack their minority neighbours were not land hungry. Rather the feeling of otherness mingled with identity assertion was twisted and turned into hatred against their alien minority Bengali culture. The citizenship question has returned to prominence this time under a changed reality which needs to be taken into consideration while assessing the future implications.  
The Migration and The Pacts 
To resolve the widespread migration across the India-Pakistan border due to communal riots that broke out during partition in 1947, the two prime ministers of India and Pakistan signed an agreement on April 2, 1950 and this is known as Nehru-Liaquat Pact. The Bengali Muslims who crossed border during partition came back to lower Assam on the basis of this pact by which both Governments would ensure complete and equal right of citizenship and security of life and properties to their minorities. Those who came back were predominantly Muslim peasant masses. Many educated and influential Muslim families both from Lower Assam and Barak Valley migrated to Pakistan leaving the vulnerable sections amenable to all kinds of communal and chauvinistic pressures and harassment. Naturally Bengali Hindus who migrated to India did not return and a section of them settled in various pockets of Brahmaputra valley and predominantly in Barak valley.
Another large-scale influx of Bengali refugee occurred during Bangladesh Liberation War in 1971. Most of these refugees had returned after the creation of Bangladesh and 1972 Indira – Mujib Pact which expired in 1997. Communal and chauvinist forces in Assam are citing illusory figures to fan ethnic passion against the Bengali migrants, both Hindus and Muslims.
The strategy of Sangh Parivar to bring the Assamese and Bengali Hindus in their fold by focusing on infiltration (Bengali Muslims) issue and the bogey of Islamophobia and posturing as the saviour of refugees (Bengali Hindus) is in doldrums. Cutting across political affiliations, all Muslim organizations want that NRC process should be completed in right earnest so that the myth of large scale Muslim infiltration post 1971 is dismantled. Bengali Hindus who saw BJP as the saviour is now getting disillusioned due to the dillydallying tactics of BJP in keeping their electoral promise to provide citizenship rights to refugee Hindus, deletion of D-voter category and dismantling of detention camps. The political and social organizations which emerged from Assam movement as Assamese national formations do not want to lose their support base to BJP and Sangh Parivar by abandoning their core chauvinist appeal to Assamese middle class.
The New Trends
An interesting phenomenon is now emerging in Assam politics. The left leaning intellectuals like Hiren Gohain who stood firm against the Assam Movement and a section of mainstream left are projecting themselves as the cementing core of all chauvinist forces. Their strategy to isolate BJP and to defeat its communal agenda by taking anti refugee (Bengali Hindu) stance to mobilize chauvinist camps is opportunistic and self-defeating. When BJP’s bid to introduce the Citizenship (Amendment) Bill, 2016 is communally motivated to incite Bengali Hindu sentiment; those who are taking anti-refugee stance are inciting Assamese ethnic sentiment. The democratic sensibilities demand that the refugee issue must be seen from a humanitarian ground while ensuring the constitutional safeguards for Assamese language and identity in Assam. It must be noted that the protection of equality— equality before law and equal protection of the law—under Article 14 of the Constitution extends to all persons in India, not just citizens.  The present moment is significant for its coalescence with the changes made in 2003 in the Citizenship Act, 1955, which eliminated citizenship by birth and gave precedence to descent. The Citizenship Act, 1955 was amended in 1986 in the wake of Assam accord to inscribe an exception in the law in recognition of the extraordinary conditions prevailing in Assam. But how a state can be democratic which does not even give recognition to those born in between 1971 to till date whose parents are illegal migrants? So, the conglomeration of forces under the leadership of intellectuals like Hiren Gohain is not upholding the democratic politics that can be pitted against BJP’s reactionary politics. The real existential threat of Assamese nationality is coming from centralization of power in Delhi and neo-liberal onslaught. Assam is losing control over all its revenue earning resources through privatization and monopolization. The state has merely become ‘Glorified Municipality’ and is dependent on the whim of the centre on every matter. In the shrinking job market, the upper strata of both Assamese and Bengali Hindu educated class are now exploring the opportunities to try their fate outside Assam. In the prevailing job opportunities for educated class, it is illusory to claim one linguistic group as competitor to other. A large section of wage labourers has emerged across the communities. The internal migration of wage-labourers to work in the infrastructural sector has increased manifold. The recent incidents of manhandling of these internally migrated Muslim workers by alleging them as Bangladeshis unfolded a new dimension in the Assam’s canvas of ethnic violence. The continuing out-migration from rural areas is creating new areas of settlement in the vicinity of neo-liberal development work and urbanization activities. The state government is getting involved in evicting their core Assamese people to serve the interest of big capital. The diverse social sector workers belonging to all the communities have already upped the ante by launching new spell of movements. So, the emerging objective condition is not conducive for the chauvinist and communal appeal. The most formidable challenge is coming from the Jharkhandi-Adivasi assertion for both identity and tea workers’ rights and the assertion of Bengali Muslims and the Namasudras who were hitherto servile and submissive to chauvinist-communal forces. They together constitute more than 50% of the Assam’s population and the majority of the working class. The Board-room directors of the communal-chauvinist camp is busy ruminating on the ways and means to create fissures through ethnic fault-lines to defeat any unity move within the struggling masses. The successful completion of NRC will seize another weapon of divisive politics from their anti-people munitions. But without an alternative democratic agenda to unite the struggling masses and disorganized working class, the hegemony of communal-chauvinist politics in Assam cannot be defeated. Caught between the two stools and without a democratic alternative, the Assamese middle class will remain supine before the big capital and the Bengali Hindu middle class, in apparent hostility to their Assamese Hindu counterpart, will actually be playing the second fiddle to the politics backed by big capital by their abject surrender to the communal forces.
It is unfortunate that the Assamese intellectual stalwarts like Hiren Gohain and a section of left intellectuals in Assam are playing to the chauvinist gallery and thus the opportunity for a democratic change of Assam’s polity and for the development of a vibrant Assamese nationality is getting missed. Will the revolutionary forces rise to the occasion to offer a democratic alternative to the people of Assam?
Jan 10, 2017
      
 http://www.frontierweekly.com/views/jan-18/10-1-18-Citizenship%20Question%20and%20Assam%20Politics.html

Gujrat Election : The old is in deathbed, Is the new kicking for birth pang?

Posted by স্বাভিমান

Gujrat Election : The old is in deathbed, Is the new kicking for birth pang?

(Editorial, Arunodoy Dec 2017, Translated from Bengali)

The Media Pundits described it as ánti-incumbency’, we call it ‘negation of negation’. Why? The Congress ruled the state till 1995 since the creation of Gujrat state in 1960, barring 18 months of Janata Rule in between. The BJP’s rise after a long 33 years of congress rule cannot be explicated simply with the tool of anti-incumbency. Similarly in 2017 election, the speed breakers which were placed on the path of seemingly unstoppable march of BJP cannot be explained away by anti-incumbency factor. This year’s assembly election revealed the unity of opposites of rebellious politics of Jignesh-Alpesh-Hardik especillay Jignesh against the status quo and the status quoits politics of Congress on one side, and the unity of opposites of communalism, economic liberalism and Sangh’s illusory construct of ‘Gujrati Ashmita’ and ‘politics of patriotism’ on the other.

Gujrat is the state which derives its prominence from trades and various entrepreneurial production centres. Gujrat’s status is also derived from its linkages with Sindh and Harappan civilization, ancient trades through seaports. The large-scale institutions based on production and trades of Milk, Spices, Diamond, leather, garments etc has been developed in the post independence period. The farmer’s families are connected with the large network of Milk Co-operatives and similarly various communities are connected with diverse business institutions. The Congress could sustain their hegemonic rule during the long period of 1960-1995 by maintaining the linkages with people through the managers of these institutions and by maintaining a balance in this economic base. The rift within the congress in 1969 under the leadership of Morarji Desai and Indira Gandhi created the space for the RSS to make deep inroads within Gujrati society and large-scale riots broke out in September and October of 1969. In the backdrop of Navanirman movement in Deccember 1963 against price rise and corruption, Morarji Desai’s indefinite hunger strike in March, 1975 etc, Congress’s tally in Gujrat assembly came down to 75 in 1975 election from its earlier strength of 140 in 167 legislatures of Gujrat assembly. Indira Congress came back to power in 1980 election after emergency.


The Indian society started witnessing imbalances in the economy and politics after that phase. The social turmoil in the name of Mandal and Kamandal and paradigm shift towards neo-liberal economy reached its zenith through Babri demolition and Monmahan’s official announcement of reform agenda. The rise of BJP and Sangh Parivar occurred in this vacuum which was created by the breakdown of economic and social balance of forces. The people’s negation of status quo was announced in a reactionary path. BJP Government in Gujrat was formed in 1995 under the leadership of Keshubhai Patel. In next 22 years, BJP and Sangh Parivar sailed smoothly all along and need not had to look back. In this election of 2017, Gujrati people sent out another message of negation which could not reach to its zenith due to the absence of nationwide democratic political alternative. What were the features of this election?

‘Hardik factor’ or ‘Patidar Anamat Andolon’ had played a significant role in this election. Patidars were considered as Sudra caste till 18th century. Patidars were provided with land through Rayotwari system to enhance British’s revenue earnings and thus Patidars were converted to landowning peasant community. After the construction of Railway line in Boroda in 1960, a section of Patidars amassed wealth through production and export of cotton, tobacco, oil seeds, and some of the wealthy Patidars migrated abroad. There is one Patidar in every ten Indian American and those Paridars are famous for their Motel business. Patels became politically influential force during the Vallabhbhai Patel’s tenure as Deputy Prime Minister and central Home Minister. The internal inequality and class-divisions within the Patels also increased significantly. The anger of unemployed youths who numerically increased leaps and bounds due to jobless growth model were turned into anti-reservation movement in 1985 with the conspicuous backing of Sangh Parivar. But the agricultural distress, lack of public investment, jobless growth since 1990 perturbed the educated and half-educated working class and even made the landowning class restless.

The old trade and production centric institutions faced loss of credibility to maintain connect with the people due to the onslaught of neo-liberal economy. The situation worsened due to depression in export front. It was tried to assuage the internal grievances within the Patel community by offering ministerial berths to many representatives from influential section of Patel community in 1995 Gujrat Cabinet. This effort was further strengthened through 2002 riot and politics of polarization. But the long journey of neoliberal model of jobless growth, the urbanization to cater the aspiration of upper classes, the emergence of cheap army of labour created cracks in the balances of status quo, changed the dynamics of caste-community aspirations. This internal chemistry within the Patel community led the Patels to join hands with Non-Patels OBCs and the Dalits and to launch the reservation movement by shifting away from their erstwhile anti-reservation stance. The emergence of Hardik Patel as the leader of Patels of lower strata reflected this aspiration. BJP, in consonance with their communal politics and neoliberal economic policy, had no other option but to obviate this new class dimension with repressive measures. The repressive measures of Gujrat Government had strengthened their resolve to be uncompromising and this further alienated the Patels from BJP’s fold. The rebellion against the status quo was most evident in the Dalit movement under the leadership of Jignesh whose appeal for unity to include even the religious minority was polar opposite to Sangh Parivar’s position. The presence of large number of working class and their class power enabled Jignesh et el to take the radical stance, this was not so strong in the case of Hardik – Alpesh phenomena. The influence of landowners and business class was significant in the mass mobilizations of Hardik – Alpesh. This class of people was agitated against the BJP because of the adverse impact of agrarian crisis, demonitisation and GST. But their vacillating class character finally inclined them towards the leadership of Modi-Shah duo at the fag end of the electoral campaign on ‘Gujrat Ashmita’ & communal polarization.

Congress was organizationally in disarray after electoral debacle in 2014 . Through a complex amalgamation, Congress’s strategy was to articulate the two tendencies marked by the grievance against the BJP within the ambit of status quo and the rebellion with an inclination to come out of the status quo. This strategy led Rahul Gandhi to extensively visit Gujrati temples to attract upper-castes vote base.

A signal of a new turn in the Indian situation is emanated from the Gujrat election result. It indicates many future possibilities: a silent shift of popular opinion towards Congress within the systemic status quo or the emergence of nation-wide rebellion to break the status quo for systemic change or the defeat of both the trends ensuring rise of fascism. We will wait for the nation-wide rebellion to bombard the status quo for systemic change under the active participation of revolutionary forces.    


গুজরাট নির্বাচন ঃ পুরোনো মৃত্যু শয্যায়, নতুনের জন্ম যন্ত্রণা কী প্রচ্ছন্ন?

Posted by স্বাভিমান

গুজরাট নির্বাচন পুরোনো মৃত্যু শয্যায়, নতুনের জন্ম যন্ত্রণা কী প্রচ্ছন্ন?

(অরুণোদয়, ডিসেম্বর ২০১৭ ঃ সম্পাদকীয়)
মিডিয়া পণ্ডিতেরা বলেন ‘এন্টি-ইনকাম্বেন্সি বা দীর্ঘম্যাদী ক্ষমতার নেতিবাচক প্রভাব’, আমারা বলি ‘নিগেশন অব নিগেশন বা নেতির নেতি’। কেন? মাঝখানের ১৮ মাসের জনতা দল শাসন বাদ দিলে ১৯৬০ সালে গুজরাট রাজ্য গঠনের পর থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত গুজরাট রাজ্য শাসনে অধিষ্ঠিত ছিল কংগ্রেস দল। দীর্ঘ প্রায় ৩৩ বছরের শাসনের পর গুজরাটে বিজেপি’র উত্থানকে ‘এন্টি ইনকাম্বেন্সি’ বলে যেমনি চালিয়ে দেওয়া যায় না, ঠিক তেমনি এবারের নির্বাচনে আপাতদৃষ্টিতে অপ্রতিরোধ্য বিজেপি’র গতিরোধকেও এভাবে ব্যাখ্যা করা যায় না। এবারের গুজরাট নির্বাচনের ফলাফল একদিকে জিগ্নেশ-অল্পেশ-হার্দিকদের এবং মূখ্যতঃ জিগ্নেশদের স্থিতাবস্থা বিরোধী বিদ্রোহ ও কংগ্রেসি স্থিতাবস্থার রাজনীতির বিপরীতের ঐক্য, অন্যদিকে সাম্প্রদায়িকতা ও উদারবাদী অর্থনীতির এবং কাল্পনিক গুজরাটি অস্মিতা ও দেশপ্রেমের সঙ্ঘীয় রাজনীতির বিপরীতের ঐক্যের ইঙ্গিত বহন করে।
বাণিজ্য ও বিভিন্ন উৎপাদনী উদ্যোগের প্রাধাণ্য থাকা ভারতীয় প্রদেশগুলির মধ্যে গুজরাট অন্যতম। সিন্ধু ও হরপ্পান সভ্যতা, সমুদ্র বন্দরের সাথে প্রাচীন বাণিজ্য ইত্যাদির যোগসূত্র গুজরাটের অবস্থানকে বিশেষত্ব প্রদান করেছে। স্বাধীনতা-উত্তর পর্যায়ে দুধ, মশলা, ডায়মণ্ড, চামড়া, বস্ত্র ইত্যাদি উৎপাদন ও বাণিজ্যকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে বড় বড় প্রতিষ্ঠান। ব্যাপক দুগ্ধ কো-অপারেটিভগুলির সাথে যেমন কৃষক সম্প্রদায়ের যোগসূত্র রয়েছে, ঠিক তেমনি বিভিন্ন বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগ রয়েছে বিভিন্ন জনগোষ্ঠীর। এই প্রতিষ্ঠানগুলির পরিচালকদের মাধ্যমে জনগণের সাথে যোগসূত্র বজায় রেখে এই অর্থনৈতিক ভিত্তির এক ভারসাম্যের নীতির মাধ্যমেই কংগ্রেস ১৯৬০-১৯৯৫ এই দীর্ঘ কালপর্যায়ের শাসন বজায় রেখেছে। ১৯৬৯ সালে মোরারজী দেশাই ও ইন্দিরা গান্ধীর নেতৃত্বে কংগ্রেসে ভাঙনের পর্যায়ে গুজরাটের সমাজে আরএসএস’র গভীর সাংগঠনিক অনুপ্রবেশ ঘটে এবং ১৯৬৯ সালের সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে গুজরাটে ব্যাপক সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সংগঠিত হয়। ১৯৭৩ সালের ডিসেম্বরে মূল্যবৃদ্ধি ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে নবনির্মাণ আন্দোলন, ১৯৭৫ সালের মার্চে মোরারজি দেশাই’র অনির্দ্দিষ্ট কালের অনশন ইত্যাদি ঘটনা প্রবাহের প্রেক্ষিতে ১৯৭৫-এর জুনের নির্বাচনে কংগ্রেস ৭৫ আসনে নেমে আসে, ১৬৭ জনের পূর্ববর্তী বিধান পরিষদে কংগ্রেসের প্রতিনিধি সংখ্যা ছিল ১৪০। জরুরি অবস্থার পর ১৯৮০ সালের নির্বাচনে ইন্দিরা কংগ্রেস পুনরায় ক্ষমতায় চলে আসে।
এর পরবর্তী পর্যায়েই ভারতীয় সমাজ – অর্থনীতি ও রাজনীতিতে ভারসাম্য ভাঙতে শুরু হয়।           মণ্ডল-কমণ্ডলে সামাজিক আলোড়ণ ও নয়া উদারবাদী অর্থনীতির দিকে ঝোঁক শিখর বিন্দুতে পৌঁছে বাবরি মসজিদ ভাঙা ও মনমোহন সিংহের আর্থিক সংস্কার কর্মসূচী ঘোষণার মধ্য দিয়ে। এই ভারসাম্য ভাঙার শূন্যস্থান দিয়েই উত্থান ঘটে বিজেপি ও সংঘ পরিবারের। স্থিতাবস্থার প্রতি জনগণের নেতি ঘোষিত হয় এক প্রতিক্রিয়াশীল পথে। ১৯৯৫ সালে কেশুভাই প্যাটেলের নেতৃত্বে গঠিত হয় গুজরাটে বিজেপি’র সরকার। তারপর দীর্ঘ ২২ বছর সংঘ পরিবারকে আর পেছন পানে তাকাতে হয়নি। ২০১৭ সালে এবারের নির্বাচনে গুজরাটের জনগণ দিয়ে দিল আরেক নেতি’র বার্তা, যা শিখর বিন্দু ছুঁতে পারেনি দেশব্যাপী এক গণতান্ত্রিক বিকল্প রাজনীতির অনুপস্থিতিতে। কী ছিল এই নির্বাচনের বৈশিষ্ট্য?
‘হার্দিক ফ্যাক্টর’ বা পাতিদার আনামত আন্দোলন এবারের নির্বাচনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছে। ১৮০০ শতিকা পর্যন্ত পাতিদাররা শূদ্র বর্ণ হিসেবে বিবেচিত হতো। ব্রিটিশ রায়তওয়াড়ি ব্যবস্থার মাধ্যমে খাজনা বাড়ানোর লক্ষ্যে পাতিদারদের জমি দেওয়া হয় এবং তারা জমিমালিক কৃষিসমাজে পরিণত হয়। ১৮৬০ সালে বরোদার রেল লাইন নির্মাণের মাধ্যমে তূলা, তামাক, তেলবীজ উৎপাদন ও রপ্তানীর মাধ্যমে পাতিদারদের একাংশ সম্পদশালী হয় এবং বিদেশেও পাড়ি দেয়। আমেরিকার প্রতি দশ জন ভারতীয়দের মধ্যে একজন প্যাটেল এবং মোটেল ব্যবসার জন্য এই প্যাটেলরা বিখ্যাত। রাজনৈতিকভাবে প্যাটেলরা প্রভাবশালী শক্তি হয়ে পড়ে ভল্লবভাই প্যাটেল  উপ-প্রধানমন্ত্রী ও গৃহ মন্ত্রী থাকার সময় থেকে। প্যাটেল সমাজের অভ্যন্তরিণ অসাম্য ও শ্রেণি বিভাজন উল্লেখনীয়ভাবে বৃদ্ধি ঘটে। জবলেস গ্রোথের মাধ্যমে ব্যাপক শিক্ষিত বেকার যুবকদের ক্ষোভের উপর ভিত্তি করে ১৯৮৫ সালে প্যাটেলরা অবিসি সংরক্ষণ বিরোধী আন্দোলন গড়ে তোলে যাতে মদত যোগায় সঙ্ঘ পরিবার। কিন্তু ১৯৯০ থেকে কৃষি বিপর্যয়, সরকারি বিনিয়োগের অভাব ও জবলেস গ্রোথ অশিক্ষিত বা অর্ধ-শিক্ষিত মজুরবাহিনী ও জমি-মালিকদেরও অস্থির করে তুলে। উদার অর্থনীতির দাপটে জনগণের সাথে যোগসূত্রের পুরোনো ব্যবসায় ও উদ্যোগকেন্দ্রিক প্রতিষ্ঠানগুলিও চাপের মুখে পড়ে। রপ্তানি বাণিজ্যে মন্দা এই পরিস্থিতিকে আরও জটিল করে তুলে। ১৯৯৫ সালের মন্ত্রীসভায় প্যাটেলদের প্রতিপত্তিশালী অংশের প্রতিনিধিদের থেকে অনেককে মন্ত্রী বানিয়ে প্যাটেল সমাজের অভ্যন্তরিণ ক্রমবর্ধমান এই ক্ষোভকে ম্যানেজ করার চেষ্টা হয়। এই প্রচেষ্টাকে আরও সুসংহত রূপ দেওয়া হয় ২০০২-এর দাঙ্গা ও মেরুকরণের রাজনীতির মাধ্যমে। কিন্তু ১৯৯৫ সাল থেকে উদারবাদী মডেলের দীর্ঘ জবলেস গ্রোথ পরিক্রমা, উচ্চশ্রেণির বিলাসের আকাঙ্খাকে মাথায় রেখে নগরায়ণ, কৃষি বিপর্যয়, পুরোনো উৎপাদনী আর্থিক কাঠামো ভেঙে পড়া, সস্তা মজুর বাহিনীর আবির্ভাব স্থিতাবস্থার ভারসাম্যে ধরিয়েছে ফাটল, পাল্টে দিয়েছে জাতি-বর্ণগত আকাঙ্খার স্বরূপ। অভ্যন্তরিণ এই রসায়নই প্যাটেল সমাজের নীচের অংশকে তাড়িত করে অন্যান্য অ-প্যাটেল অবিসি ও দলিতদের সাথে হাত মেলাতে, সংরক্ষণ বিরোধী অবস্থান থেকে সরে এসে সংরক্ষণের দাবিতে আন্দোলন গড়ে তুলতে। এই আকাঙ্খাকে প্রতিফলিত করতেই নীচু শ্রেণির প্যাটেলদের নেতা হিসেবে হার্দিক প্যাটেলের আবির্ভাব। বিজেপির সাম্প্রদায়িক রাজনীতি ও নয়া উদারবাদী অর্থনীতির সামনে এই নতুন শ্রেণি ডায়মেনশনকে শক্ত হাতে প্রতিহত করা ছাড়া বিজেপি’র আর কোনো উপায় ছিল না। গুজরাট সরকারের অত্যাচার পাতিদার আন্দোলনকে করে তুলে আরও আপোসহীন। স্থিতাবস্থার বিরুদ্ধে এই বিদ্রোহের সবচাইতে বিকশিত রূপ চোখে পড়ে জিগ্নেশের নেতৃত্বে দলিত আন্দোলনে, যেখানে ঐক্যের আহ্বান সঙ্ঘ পরিবারের একেবারে বিপরীত মেরুতে দাঁড়িয়ে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদেরও এক করে নেয়। জিগ্নেশদের এই র‍্যাডিক্যাল অবস্থান নিতে পারার আসল শক্তি লুকিয়ে আছে দলিত আন্দোলনে শ্রমিক শ্রেণির ব্যাপক উপস্থিতি ও শক্তি, যা হার্দিক – অল্পেশদের ক্ষেত্রে এতোটা শক্তিশালী নয়। হার্দিক-অল্পেশদের সমাবেশকে প্রভাবিত করতে জমিমালিক ও ব্যবসায়িক শ্রেণির উল্লেখযোগ্য ভূমিকা ছিল। এই শ্রেণি কৃষি বিপর্যয়, বিমূদ্রাকরণ ও জিএসটি’র আঘাতে বিজেপি’র উপর ক্ষেপে ছিল। কিন্তু শ্রেণি হিসেবে তাদের দোদুল্যমান অবস্থানের ফলেই মোদী-শাহ নেতৃত্বের ‘গুজরাটি অস্মিতা’ ও সাম্প্রদায়িক আহ্বানে সাড়া দিয়ে তাদের এক বড় অংশ শেষ মুহূর্তে বিজেপি’র দিকে ঝোঁকে পড়ে।
স্থিতাবস্থার অভ্যন্তরে বিজেপি বিরোধী ক্ষোভ ও স্থিতাবস্থার বাইরে বেরিয়ে আসার প্রবণতা নিয়ে বিদ্রোহ - এই দু’য়ের জটিল সংমিশ্রণ ঘটানোর রণনীতি নিয়ে এগোয় কংগ্রেস এবং সেজন্যই উচ্চশ্রেণি-বর্ণকে আকৃষ্ট করতে রাহুল গান্ধীর মন্দির পরিক্রমা।
গুজরাট নির্বাচনের ফলাফল ভারতীয় পরিস্থিতিতে এক নতুন মোড় নেওয়ার ইঙ্গিত। এই ইঙ্গিত স্থিতাবস্থা বজায় রেখে কংগ্রেসের দিকে নিঃশব্দে ঘুরে যাওয়া বা স্থিতাবস্থা ভেঙে দেওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় বিদ্রোহের দেশব্যাপী বিকাশ অথবা এ দু’য়ের পরাজয়ে ফ্যাসীবাদের উত্থানের দিকে আমাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। বিপ্লবী শক্তির সক্রিয় অংশগ্রহণে স্থিতাবস্থা ভাঙার দেশব্যাপী বিদ্রোহের জন্য আমরা অপেক্ষা করে থাকব। 

     

শিশির দে-র ফেসবুক পোস্টকে ঘিরে কতিপয় ব্যাক্তির উন্মত্ত আচরণ গণতন্ত্রের পক্ষে বিপজ্জনক : ১০ টি সংগঠন ও গণতন্ত্রপ্রিয় ব্যক্তিদের যৌথ বিবৃতি

Posted by Naya Ganatantra Labels: , , ,







ফেসবুকে একটি পোস্টকে ঘিরে দেবদুলাল দাস ও পঙ্কজ দাসের দ্বারা গত ১০ ডিসেম্বর করিমগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয় আইনজীবী শিশির দের বিরুদ্ধে। গণতান্ত্রিক চিন্তাচর্চা ও প্রকাশের স্বাধীনতার কথা মাথায় রেখে এই ঘটনায় আমরা নিম্ন-স্বাক্ষরকারীরা উদ্বিগ্ন। 

          আমরা মত প্রকাশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী৷ শিশির দে শুধুমাত্র একজন আইনবিদই নন, ব্যক্তি হিসেবে তিনি অত্যন্ত সংবেদনশীলমানবিক ও পরমত সহিষ্ণু৷ মানবিক আবেগের বহিঃপ্রকাশে ভাষা ও ভাবের ব্যবহারের জটিলতায় কেউ মানসিক আঘাত পেলে তাঁরা এর প্রতিবাদ করতে পারেন, কিন্তু নিজেদেরকে ধর্মের রক্ষক হিসেবে জাহির করে আক্রমণাত্মক আচরণ করা সুস্থ মানসিকতার পরিচায়ক নয়৷ গণতান্ত্রিক মূল্যবোধহীন, আইনের শাসনের প্রতি আস্থাহীন, ক্ষমতার দম্ভে বলীয়ান হয়ে শিশিরের প্রতি উন্মত্ত আচরণে নেমেছেন কতিপয় ব্যক্তি৷ শিশিরের বক্তব্যে কোনো ব্যক্তি আক্রমণ ছিল না, ছিল এক ভাবধারার প্রতি শ্লেষ৷ যুক্তি দিয়ে কেউ এই শ্লেষকে খণ্ডন করতে পারেন৷ কিন্তু এই পোস্টের পর যেভাবে কয়েকজন ব্যক্তি হুমকি ও বিদ্বেষমূলক প্রচারে লিপ্ত হয়েছেন এবং সর্বোপরি অসাংবিধানিক যেসব মন্তব্য উঠে আসছে তা ভয়াবহ ও শান্তি সম্প্রীতির সুস্থ পরিবেশের জন্য বিপজ্জনকও বটে। এদের পোস্ট থেকে আমাদের ধারণা তারা শিশিরকে শারীরিকভাবে নিগৃহীত করতে চাইছেন৷ এটাই সামাজিক অসহিষ্ণুতা, এটাই ক্ষমতার দম্ভ, এটাই জাতি ও জনগণের সামনে প্রধান বিপদ৷ এই প্রবণতাকে আমরা গণতন্ত্রপ্রিয় মানুষ বিরোধিতা করছি। 

          শিশির বাবুর এই মন্তব্য আইনের কোনো ধারা মতে কোনো অপরাধের আওতায় আসে না। এটা সংবিধান স্বীকৃত বাকস্বাধীনতার ব্যবহার। তারপরেও মামলা দায়ের করে আইনের অপপ্রয়োগ মুক্ত কণ্ঠ রোধের অপচেষ্টা বলে মনে করি। গোটা বিষয়কে যাতে এক সামাজিক বিতর্কের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে বিচার করা হয়, হয়রানি করার মানসিকতা পরিহার করে প্রশাসনিক ন্যায়বিচার দেখানো হয়, তারজন্য আমরা করিমগঞ্জের জেলা উপায়ুক্ত ও জেলা পুলিশ সুপারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি৷


ফোরাম ফর সোশ্যাল হারমনি-র পক্ষে - অরূপ বৈশ্য।

★ভারতীয় বিজ্ঞান ও যুক্তিবাদী সমিতি-র পক্ষে - দেবাশিস ভট্টাচার্য ।

★পিপলস্ সায়েন্স সোসাইটি-র পক্ষে - হিল্লোল ভট্টাচার্য।

★ নিউ ট্রেড ইউনিয়ন ইনিশিয়েটিভ (আসাম রাজ্য কমিটি)-র পক্ষে - দেবব্রত শর্মা।

★ অসম মজুরি শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজি নং ২২৮৭)-র পক্ষে মানস দাস।

★ কোরাস সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংস্থা-র পক্ষে - বিশ্বজিৎ দাস।
★আসাদুল হক--মাইনোরিটি ডেমোক্রেটিক ইউথ ফেডারেশন, নগাওঁ, আসাম।

★ গণতান্ত্রিক লেখক সংস্থা-র পক্ষে - সঞ্জীব দাস।
★ নারী মুক্তি সংস্থা-র পক্ষে - স্নিগ্ধা নাথ।

★ প্রতাপ সাহিত্য পত্রিকা গোষ্ঠী-র পক্ষে - শৈলেন দাস।

দৈনিক প্রান্তজ্যোতি, ১৬ ডিসে, পৃ: ১৬
১। মৃন্ময় দেব ২। মন্দিরা নন্দী ৩। মানস সেনগুপ্ত ৪। সুশান্ত কর ৫। শুভ প্রসাদ নন্দী মজুমদার ৬। বিজয়া করসোম ৭। তমোজিত সাহা ৮। সিদ্ধার্থ দত্ত ৯। পরম ভট্টাচার্য ১০। সুজিৎ নাগ ১১। কমল চক্রবর্তী ১২। তানিয়া লস্কর ১৩। সর্বজিৎ দাস ১৪। টিংকু গুপ্ত ১৫। অরিন্দম দেব ১৬। নভোস্মিতা দাস ১৭। অঞ্জন শুক্লবৈদ্য ১৮। অজন্তা নাথ ১৯। ধরিত্রী শর্মা ২০। কৃষাণু ভট্টাচার্য  ২১। সুমন দে ২২। কুহেলী দেবরায় ২৩। নীলকান্ত দাস ২৪। কাবেরী দাস ২৫। দীপ তরাত ২৬। অনিন্দিতা চক্রবর্তী ২৭। সুমনা চৌধুরী (কাছাড়) ২৮। সুমনা চৌধুরী (করিমগঞ্জ) ২৯। সাবিনা রহমান চৌধুরী ৩০। রফিউল মজুমদার ৩১। আদিমা মজুমদার ৩২। শহিদুল হক ৩৩। শামীম আহমেদ ৩৪। সারোয়ার জাহান ৩৫। আজিম বড়ভূইয়া ৩৬। ফারুক লস্কর ৩৭। শেখাওয়াত মজুমদার ৩৮। সামসুল হুদা ৩৯। ফজলুল করিম ৪০। পীযুষকান্তি দাস ৪১। জামাল উদ্দিন ৪২। সৌম্য চক্রবর্তী ৪৩। বাবর চৌধুরী ৪৪। পারভেজ খসরু লস্কর ৪৫। দেবকান্ত দাস ৪৬। অপর্ণা দেব ৪৭। দেবজ্যোতি বন্দ্যোপাধ্যায় ৪৮। শুভ্রজ্যোতি দাস ৪৯। সুজিৎ দে ৫০। ইমাদুল ইসলাম চৌধুরী  ৫১। অলিউল্লাহ্ লস্কর ৫২। নিপ্পন নাথ ৫৩। সুদীপ দে ৫৪। এদিব ইমন ৫৫। পিয়া দাস ৫৬। দেবাংশু নাথ ৫৭। প্রলয় দত্ত ৫৮। দেবকুমার হালদার ৫৯। অরুণাভ গাঙ্গুলি ৬০। অনীক ভট্টাচার্য ৬১। রাহুল সিনহা ৬২। শুভ্রব্রত চৌধুরী ৬৩। সীতাংশু দে ৬৪। সৌম্যদীপ রায় চৌধুরী ৬৫। নজমুল হুসেন লস্কর ৬৬। মৌপিয়া চৌধুরী ৬৭। এম বাহারুল ইসলাম ৬৮। সবিতা ভট্টাচার্য ৬৯। বিনীতা হাজারিকা ৭০। বিশ্বজিৎ দাস (করিমগঞ্জ) ৭১। মনীষ দাস ৭২। সাহাবুদ্দিন ৭৩। আবুল কাসিম তাপাদার ৭৪। এ.কে. বাহাউদ্দিন ৭৫। মাসুক আহমেদ মজুমদার ৭৬। প্রতিমা পাল ৭৭। সাহাবুদ্দিন ৭৮। নাজির হুসেন মজুমদার ৭৯। সেতাব উদ্দিন ৮০। সাদিক লস্কর ৮১। নুমান আহমেদ ৮২। আবু তাহের হুসেন ৮৩। সাবর্ণি পুরকায়স্থ ৮৪। রঞ্জন কান্তি ভট্টাচার্য ৮৫। সুব্রত রায় ৮৬। প্রবাল দত্ত ৮৭। হিজবুল ফিদা কাদির ৮৮। মনদীপ দেবজা ৮৯। আতিক আহমেদ চৌধুরী ৯০। আকাশ সরকার ৯১। শ্রুতয়া ভট্টাচার্য ৯২। রুহুল আমিন ৯৩। সুমিতা চৌধুরী ৯৪। সাদিকা খানম ৯৫। সুকান্ত নাথ ৯৬। মুস্তফা লস্কর ৯৭। অপরাজিতা দে ৯৮। প্রীতি দাস ৯৯। অনন্যা গুপ্ত ১০০। জগৎ সিনহা ১০১।  অরুণাংশু ভট্টাচার্য ।  ১০২। এ. সবুর তাপাদার। ১০৩। শ্যামা পাল ১০৪। দুলু দাস ১০৫। আতিকুল বারি ১০৬। অনীক ভট্টাচার্য ১০৭। সৌরভ হাসান। ১০৮। শাস্বত পুরকায়স্থ। ১০৯।আনছারুল্লাহ তালুকদার। ১১০।ডাঃ রাজীব কর। ১১১।জাকির হুসেন।১১২। রতিশ দেব। ১১৩। জুবাইর আহমেদ মজুমদার। ১১৪। বাসব রায়। ১১৫। পারিজাত এন ঘোষ।

(আরো যারা সমর্থন জানাতে থাকবেন, তাদের নাম এখানে জুড়ে যাবে। কাগজে যদিও প্রথম ১০৭টি নামই চলে গেছে। )

ফোরাম ফর সোশ্যাল হারমনি’র ২৬/১১/২০১৭ গণ-কনভেনশনে গৃহীত প্রস্তাবসমূহ :

Posted by স্বাভিমান Labels: , , , ,





ন্দোলন কর্মসূচী
(ক) নিম্নলিখিত প্রস্তাবসমূহের ভিত্তিতে আসামের বিভিন্ন জেলায় কনভেনশন করা যায় কিনা তা খতিয়ে দেখা।
(
খ) নিম্নলিখিত দাবিসনদের ভিত্তিতে বরাকের তিন জেলায় ন্যূনতম একটি করে জনসভা করা এবং ডিসেম্বরের শেষে কোরাসের উদ্যোগে বরাক উপত্যকা পরিক্রমায় কনভেনশনের সিদ্ধান্ত সমূহ প্রচার করা।
(
গ) শুধুমাত্র এইচপিসি-র বিষয় নিয়ে ও নির্দিষ্ট পদক্ষেপ গ্রহণের ব্যাপারে আলোচনার জন্য অনতিবিলম্বে ফোরামের পক্ষ থেকে একটি বিশেষ সভা ডাকা হবে। এই সভায় বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ সহ বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধিদের উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানায় কনভেনশন।
(
ঘ) বিভিন্ন জায়গায় সমাবেশ করে মানুষের মধ্যে এনআরসি-ভীতি দূর করা ও তার জন্য বিভিন্ন জায়গায় সমাবেশগুলিতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আইনজীবীদের পরামর্শ উপস্থাপন করা। নাগরিকদের হেনস্তা থেকে বাঁচাতে আইনি সহায়তা প্রদান।
                                             ~~~০০০~~~
নীতিগত প্রস্তাবসমূহ
(১) এনআরসি ও নাগরিকত্বের বিষয়ে :
এনআরসি প্রক্রিয়া যখন শুরু হয়, তখন বিভিন্ন জনগোষ্ঠী ও শুভবুদ্ধিসম্পন্ন নাগরিকরা একে স্বাগত জানিয়েছিলেন। অনেকেই স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছিলেন এই ভেবে যে স্বাধীনতা-উত্তর পর্যায় থেকে আসামে নাগরিকত্বের প্রশ্নকে ঝুলিয়ে রেখে ভারতীয় নাগরিকদের হয়রানি ও এনিয়ে রাজনীতির দুষ্টচক্রের যে দীর্ঘ খেলা চলে আসছে তার হয়ত এক স্থায়ী সমাধান হবে। কিন্তু বারবার নাগরিকত্ব প্রমাণের মানদণ্ড বদলে দিয়ে এনআরসি প্রক্রিয়াকে জটিল করে তোলা হচ্ছে ও ভারতীয় নাগরিকদের হয়রানি অব্যাহত রয়েছে। এনআরসি প্রক্রিয়া নিজেই এক বিভ্রান্তি ও ভীতির বাতাবরণ তৈরি করেছে। নাগরিকত্বের প্রশ্নকে আমরা মানবিক ও সাংবিধানিক অধিকারের দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখতে আগ্রহী। যেহেতু ১৯৭১-এর ২৪ মার্চ মধ্যরাত্রি ডেটলাইন হিসেবে সব পক্ষ মেনে নিয়েছে, নাগরিকত্ব প্রশ্নের স্থায়ী সমাধানের স্বার্থে আমরাও তাই মেনে নিচ্ছি। নাগরিক পরিচয়ের প্রশ্নে আর কোনো ধরনের বেঞ্চমার্কের আমরা বিরোধী। বারবার পদ্ধতি ও প্রমাণপত্রের মানদণ্ড বদল করে ভারতীয় নাগরিকদের হয়রানি বন্ধ করা,উপর্যুপরি বন্যা নদী-ভাঙন ইত্যাদিতে সর্বস্বান্তদের প্রমাণপত্র দাখিলের ব্যাপারে যথেষ্ট নমনীয় পদ্ধতিতে মানবিকতার সাথে নাগরিকত্ব নির্ধারণ করা ও এনআরসি যেহেতু নাগরিক চিহ্নিত করবে, তাই ডি-ভোটার ও ডিটেনশন ক্যাম্প উঠিয়ে দেওয়ার দাবি আমরা উত্থাপন করছি।
(২) বিশ্বায়ন, বেসরকারিকরণ ও শ্রমজীবীদের অধিকার :
আমাদের চোখের সামনে বরাক উপত্যকার একটি বৃহৎ শিল্পোদ্যোগ এইচপিসি বন্ধ হয়ে গেল। দুর্নীতি অছিলা মাত্র, আসলে গোটা দেশব্যাপী বেসরকারিকরণের যে আয়োজন চলছে এ তারই পরিণতি। শ্রমিক-কর্মচারীদের বকেয়া বেতন দেওয়ার মতো মানবিক আচরণটুকুও সরকার দেখাল না। সমস্ত সরকারি উদ্যোগকে ব্যক্তি-মালিকানায় দিয়ে দেওয়া, বিদেশি পুঁজির লুণ্ঠনের জন্য শ্রম ও বিত্তীয় সংস্কার, কৃষি বিপর্যয়, জনগণের ক্রয় ক্ষমতা কমে যাওয়ায় শিল্পে বিনিয়োগে অনীহা ইত্যাদি সবকিছু মিলে ভয়ানক রুজি-রোজগার ও বেকারত্বের সমস্যা সৃষ্টি করেছে। চা-শ্রমিক, পরিবহণ শ্রমিক, নির্মাণ শ্রমিক, অঙ্গনওয়াড়ি আশা কর্মী, ক্ষুদ্রশিল্পের শ্রমিক, ক্যাজুয়্যাল ও ঠিকা শ্রমিক ইত্যাদি সবাই ন্যূনতম মজুরি ও সামাজিক সুরক্ষা থেকে বঞ্চিত। সরকার তাদের দায়িত্ব ঝেড়ে ফেলতে প্রচলিত আইনগুলিই বদলে দিতে চাইছে। শ্রমিকদের মজুরি ও সামাজিক সুরক্ষার ন্যায্য অধিকার ও পর্যাপ্ত কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্য রাষ্ট্রীয় মালিকানায় শিল্পায়নের প্রয়োজন।
(৩) দেশপ্রেম ও উন্নয়ন:
দেশ শুধুমাত্র এক ভূগোল নয়, এই ভূগোলে বসবাসকারী মানুষকে বোঝায়। এই মানুষকে ভালবাসার নামই দেশপ্রেম। মানুষের প্রতি ভালবাসা ব্যক্ত হয়ে উঠে সবচাইতে নিপীড়িত বঞ্চিত ও পিছিয়ে পড়া শ্রেণি-বর্ণ-জনগোষ্ঠীর ক্ষমতায়ন ও উন্নয়নের এক দেশব্যাপী ধারণার মধ্য দিয়ে। দেশকে ভূগোল ও সীমানা রক্ষার দৃষ্টিভঙ্গি থেকে দেখলে এই বঞ্চিত মানুষরা থেকে যায় আড়ালে, তাদের উপর নিপীড়ন পায় বৈধতা। এই বৈধতার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে নিপীড়িতের পক্ষে যারা বৌদ্ধিক চর্চা করেন বা সমাজ কর্মী হয়ে উঠেন তাদের উপর নেমে আসে আক্রমণ। দেশপ্রেমের নামে এই আক্রমণের ইতিমধ্যে বলি হয়েছেন বেশ কজন বুদ্ধিজীবী ও দলিত-সংখ্যালঘু মেহনতি মানুষ। এই কল্পিত দেশপ্রেমের বিপরীতে প্রকৃত দেশপ্রেমকে রক্ষা করার সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে। এই দেশপ্রেম প্রোথিত থাকবে এমন এক উন্নয়ন মডেলে যা ভারতবর্ষের শ্রম ও প্রকৃতিকে ধ্বংসাত্মকভাবে শোষণ করে না।
(৪) শিক্ষা ও স্বাস্থ্য :
শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের সংকট দেখা দিচ্ছে ক্রমবর্ধমান আর্থ-সামাজিক অসাম্য ও বেসরকারিকরণের মাধ্যমে ব্যক্তি পুঁজির প্রাধান্যের ফলে। ভাল শিক্ষা ও ভাল চিকিৎসা হয়ে পড়ছে ব্যয়বহুল। সবার জন্য শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের লক্ষ্য থেকে সরে গিয়ে মুনাফার লক্ষ্য হয়ে পড়েছে প্রধান। শিক্ষায় সরকারি ব্যয় হয়ে পড়ছে সংকুচিত, ফলে মাতৃভাষায় পঠন পাঠনের সুযোগও হারিয়ে যাচ্ছে। স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে ভয়ানক বিপর্যয়ের হাতছানি শোনা যাচ্ছে। আমেরিকান ধনকুবের জর্জ সরস ও বিল গ্যাটস স্বাস্থ্য ফাউন্ডেশন খুলেছেন এবং ফাউন্ডেশনের অর্থ নিয়ে ইতিমধ্যে ভারতে হাজির হয়েছেন। চিকিৎসা ব্যবসায়ের মাধ্যমে বেসরকারিকরণ ও মুনাফাই যে তাদের প্রধান লক্ষ্য এব্যাপারে আমরা নিশ্চিত। সবার জন্য শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের সংগ্রামকে জোরদার করা আজকের সময়ের দাবি।
(৫) বৈচিত্র্যের উপর আঘাত ও ফ্যাসিবাদী প্রবণতা :
বৈচিত্র্যের উপর আঘাত আজকের ভারতবর্ষে এক প্রধান বিপদ হিসেবে দেখা দিয়েছে। এক ভাষা-এক ধর্ম-এক সংস্কৃতির প্রচারের রাষ্ট্রীয় আয়োজনের পেছনে চলছে ক্ষমতার ও বাজারের কেন্দ্রীভবন। দিল্লি থেকে গোটা ভারতবর্ষ শাসন করার মনোবাসনা পূর্ণ করতে গিয়ে সাম্প্রদায়িক ও সাংস্কৃতিক বিভাজনের জিগির তোলা হচ্ছে, রাজ্যকে করে দেওয়া হচ্ছে পঙ্গু, যারা এখনও ভাষিক-সাংস্কৃতিক অধিকার থেকে বঞ্চিত তাদের জন্য সমস্ত দরজা বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। বহুত্ববাদের বিপরীতে একমত ও একপথের এই শাসন কায়েম করার মানসিকতা অন্তর্বস্তুতে ফ্যাসিস্ট চরিত্রের। এই বিপদকে আমাদের রুখতে হবে।
_______________________________________
নির্দিষ্ট প্রস্তাবসমূহ :
(১) প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী অবিলম্বে ডিটেনশন ক্যাম্পউঠিয়ে দিতে হবে। (২) এনআরসি যেহেতু নাগরিকত্ব নির্ধারণ করবে, তাই ডি-ভোটারউঠিয়ে দিয়ে নাগরিকদের হয়রানি বন্ধ করতে হবে। (৩) ১৯৭১র ২৪ মার্চের মধ্যরাত্রির আগে আসামে বসবাসকারীদের নাগরিকত্ব দিতে হবে কোনো শ্রেণি বিভাগ ছাড়া। (৪) পাসপোর্টের ক্ষেত্রে ১৯৬৬র ভোটার তালিকাকে প্রামাণ্য দলিল হিসেবে গ্রহণ করা ও সরকারি অফিসারকে সামনে রেখে পুলিশ ভ্যারিফিকেশন করার প্রক্রিয়াকে ফোরাম বিরোধিতা করছে। ১৯৭১ এর ২৫ মার্চ যেহেতু নাগরিকত্বের ভিত্তিবর্ষ এবং পুলিশ প্রশাসন নিজেই যেহেতু সরকারি বিভাগ, তাই উপরোক্ত নিয়ম বাতিল করা। (৫) এইচপিসি কর্মীদের বকেয়া বেতন অবিলম্বে প্রদান করতে হবে। (৬) সরকারি উদ্যোগে এইচপিসি চালু করতে হবে। (৭) নদী-ভাঙন রোধ করতে হবে। (৮) সম-কাজে সম-মজুরি প্রদান ও চা-শ্রমিক সহ সব ক্ষেত্রে শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি আইনের অধীনে ন্যূনতম মজুরি প্রদান করতে হবে। (৯) সবার জন্য শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সুনিশ্চিত করা এবং এসব ক্ষেত্রে বেসরকারিকরণ বন্ধ করা। (১০) উচ্চশিক্ষায় ভর্তি ও অন্যান্য মাশুলের মাত্রাতিরিক্ত বৃদ্ধি রোধ করে পূর্বাবস্থায় নিয়ে যাওয়া। (১১) সবার মাতৃভাষায় পঠনপাঠন ও ভাষিক-সাংস্কৃতিক অধিকার সুনিশ্চিত করা। (১২) ধর্মীয় বিভাজনের রাজনীতি ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলা করা। (১৩) ব্রহ্মপুত্রের চর এলাকায় বসবাসকারী মানুষের জন্য শিক্ষা, স্বাস্থ্য, রাস্তাঘাট, বিদ্যুৎ ইত্যাদির পরিসেবা সহ উক্ত অঞ্চলের বাসিন্দাদের জমির স্থায়ী পাট্টা প্রদানের দাবিতে উদ্যোগ নেওয়া। (১৪) শিক্ষার ক্ষেত্রে স্কুল কলেজে বৈজ্ঞানিক অ্যাকাডেমিক ক্যালেন্ডার এবং বরাকের নির্দিষ্ট সাংস্কৃতিক বাস্তবতাকে সামনে রেখে অ্যাকাডেমিক ক্যালেন্ডার করতে হবে।(১৫) চা-বাগানের যুবক-যুবতীদের শিক্ষা-স্বাস্থ্য-চাকরির জন্য সংগ্রাম করা, চা-বাগানের মানুষের ভাষা-সংস্কৃতির বিকাশের জন্য উদ্যোগ নেওয়া। চা-শ্রমিকদের মজুরি ৩৫০টাকা বৃদ্ধি করার দাবি জানানো। নিজ মাতৃভাষায় চা-শ্রমিকদের পরিবারের ছাত্র-ছাত্রীদের শিক্ষাপ্রদান চালু করার দাবি জানানো। সংগঠনের কাজ করার ক্ষেত্রে বাগান কর্তৃপক্ষ যে বাধা দেয় ও কূটচালের আশ্রয় নেয় তার মোকাবিলা করা। (১৬) নদী-উপনদীগুলোর জলে কোয়ারিগুলোর যানবাহনের মাধ্যমে পেট্রোল-ডিজেল ছড়িয়ে পড়ে। এই জলগুলোই চা-বাগান সংলগ্ন এলাকাগুলোতে সরবরাহ করা হচ্ছে, ফলে এই এলাকাগুলোর মানুষ ও পশুপাখির মধ্যে বিভিন্নধরনের রোগ ছড়িয়ে পড়ছে। জল-দূষণের বিরুদ্ধে এখনই পদক্ষেপ নেওয়া।(১৭) চা-শ্রমিক ও প্রাক্তন চা-শ্রমিকদের তপসিলি জাতি-জনজাতির স্বীকৃতি দেওয়া ও চা-শ্রমিক ও প্রাক্তন-শ্রমিকদের জমির পাট্টা প্রদান। (১৮) শিলচর মেডিক্যাল কলেজের বিভিন্ন বিভাগ পরিচালনার ক্ষেত্রে যেভাবে বেসরকারিকরণ করা হচ্ছে তার বিরোধিতা করা। (১৯) শিলচর মেডিক্যাল কলেজের কার্ডিওলজি বিভাগকে আধুনিক সরঞ্জাম, ডাক্তার ও স্বাস্থ্যকর্মী দিয়ে স্বয়ংসম্পূর্ণ বিভাগে রূপান্তরিত করতে হবে। (২০) সাম্প্রদায়িক বিভাজনের জন্য সচেষ্ট থাকা দুষ্টচক্রদের চিহ্নিত করা, ইতিহাস বিকৃত করার ও ঘৃণার বাতাবরণ তৈরির অপচেষ্টা সম্পর্কে সচেতন থাকা ও এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা।

স্বাভিমান:SWABHIMAN Headline Animator

^ Back to Top-উপরে ফিরে আসুন